Bangladesh
উন্নয়ন, মুক্তিযোদ্ধা, সকলের পাশে আছে হাসিনা সরকার

India Blooms News Service | 22 Nov 2017

#

ঢাকা, নভেম্বর ২১ঃ বাংলাদেশের সরকার সকল মানুষের জন্য ভাবে ও তাদের পাশে দাঁড়ানোর চেষ্টা করেন।

বাংলাদেশ সরকার দেশের মুক্তিযোদ্ধাদের কথা আজও ভাবেন।

তাদের পাশে দারিয়েছেন সরকার।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই পদক্ষেপগুলি নেয়াতে সবসময় ভাবেন। উনি চেষ্টা করেন মানুষের উন্নতি ও দেশের ভালো করবার জন্য।

মঙ্গলবার প্রধানমন্ত্রী নিজে জানান যে ওনার সরকার আগামী জানুয়ারি মাস থেকে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণকারী বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যদের প্রত্যেককে ভাতা দেবে।

‘সশস্ত্র বাহিনী দিবস ২০১৭’ উপলক্ষে ঢাকা সেনানিবাসের মাল্টিপারপাস হলে আয়োজিত খেতাবপ্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা/উত্তরাধিকারীদের সংবর্ধনা প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী এই গুরুত্বপূর্ণ কথাগুলি বলেছেন।

উনি বলেনঃ "আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি, ২০১৮ সালের জানুয়ারি থেকে বিভিন্ন বাহিনীর সদস্যরা, বিশেষ করে সশস্ত্র বাহিনী, পুলিশ, আনসার-ভিডিপি এবং বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (তৎকালীন ইপিআর) সদস্য, যাঁরা মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেছেন, তাঁদের ভাতা দেওয়া হবে।"

হাসিনা বলেনঃ "সশস্ত্র বাহিনীর সদস্য যাঁরা মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেছেন, তাঁরা সে সময় বাহিনীতে কর্মরত ছিলেন বলে সে সময়ে তাঁদের ভাতা দেওয়া হয়নি। তাঁরা সবাই প্রায় এখন অবসরে এবং তাঁদের পরিবারের সদস্যরাও সমস্যায় রয়েছেন...আমরা এঁদের সবাইকেই আগামী জানুয়ারি থেকে ভাতা দেব ইনশা আল্লাহ।"

উনি বলেন ওনার সরকার এই ভাতা প্রদানের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মান রক্ষায় ওনার সরকার সব সময় চেষ্টা করেন।

হাসিনা বলেনঃ "তাঁদের আমরা মর্যাদা দেওয়ার প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছি।"

বাংলাদেশের সরকার উন্নয়ন করবার চেষ্টা সবসময় করছেন।

তবে, সেই উন্নয়ন যে একদিনে সম্ভব না তাও পরিষ্কার করে দিয়েছেন হাসিনা সরকার।

মানুষকে মিথ্যে কথা বলতে চায়না হাসিনা সরকার।

ঠিক যেমন

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের মঙ্গলবার বলেন।

উনি বলেন দেশে উন্নয়ন চলার সময় মানুষকে দুর্ভোগ মেনে নিতে হবে।

এই বিষয় দেশের মানুষকে উনি অনুরোধ করেন যে তারা যেন কিছুটা হলেও এই বিষয়টি মেনে নেন।

মহাসড়কে দুর্ভোগের বিষয় উনি বলেনঃ  “মাননীয় সংসদ সদস্য দুর্ভোগের কবলে আছেন। জন্মকালের যন্ত্রণাটা কেউ কি অস্বীকার করতে পারবেন। “

জাতীয় সংসদে, সংসদ সদস্য নুরুল ইসলাম ওমর টাঙ্গাইলের এলেঙ্গায় মহাসড়কে চার লেইনের কাজ চলার কারণে যানজটের দুর্ভোগের কথা তুলে ধরলে তার উত্তরে মন্ত্রী এই কথাগুলি বলেছেন।

মন্ত্রী বলেনঃ "চার লেইন করার একটা যন্ত্রণা আছে, জন্মযন্ত্রণা। আমাদের এটা মেনে নেওয়া উচিৎ। বাস্তবতা বুঝতে হবে। রাস্তা করতে একটু সময় লাগে। চিন্তা করতে হবে এবার এক বছরের মধ্যে ৯ মাস বৃষ্টি হয়েছে। বৃষ্টির মধ্যে কি কাজ করা যায়? ধৈর্য ধরুন, অপেক্ষা করুন, সময়মতো শেষ হবে।”




Video of the day
More Bangladesh News
Recent Photos and Videos

Web Statistics