Bangladesh
তৃতীয় কাউকে ডাকতে হবে কেন? হাসিনা

26 Nov 2017

#

ঢাকা, নভেম্বর ২৬ঃ মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গা মানুষদের ফিরিয়ে নেওয়ার বিষয় দ্বিপক্ষীয় আলোচনার মাধ্যমে দেশটির সঙ্গে সম্মতিপত্র স্বাক্ষর হওয়াকে ‘বিরাট সাফল্য’হিসেবে ডাক দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

হাসিনা প্রতিবেশী দেশগুলির মধ্যে সমস্যা মেটানোর বিষয় দ্বিপাক্ষিক আলোচনার উপরে জোড় দিয়েছেন।

 

হাসিনা ‘রাষ্ট্রদূত সম্মেলনের’ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে নিজের বক্তব্য রাখার সময় এই কথাগুলি বলেছেন।

 

রোহিঙ্গা বিষয়টির উপরে জোড় দিয়ে উনি বলেনঃ “কেন আমাকে তৃতীয় কাউকে ডাকতে হবে?”

 

রোহিঙ্গা বিষয় আন্তর্জাতিক সংস্থা ও বিভিন্ন দেশের সমর্থন পাওয়ায়, শেখ হাসিনা বলেনঃ  “আন্তর্জাতিক বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে চলতে হবে। প্রতিবেশীর সঙ্গে সুসম্পর্ক বজায় রাখতে হবে।”

 

গত বছরের অক্টোবর ও তার পরে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা নাগরিকদের ফিরিয়ে নিতে রাজি হয়েছে মিয়ানমার।

 

দীর্ঘদিন ধরে জাতিগত নিপীড়নের শিকার হয়ে বহু মানুষ বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছেন।


পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী এই কথাগুলি আজ সাংবাদিকদের মিয়ানমার সফর করে দেশটির সঙ্গে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে একটি সম্মতিপত্র সই করে এসে বলেছেন।


মন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেনঃ "স্বাক্ষরিত চুক্তি অনুযায়ী মিয়ানমার গত ৯ অক্টোবর ২০১৬ এবং ২৫ আগস্ট ২০১৭ এর পরে বাংলাদেশে আশ্রয়গ্রহণকারী বাস্তুচ্যুত রাখাইন রাজ্যের অধিবাসীদের ফেরত নিবে।"

 

“এই চুক্তির অধীনে রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনের পর ৯ অক্টোবর ২০১৬ এর আগে বাংলাদেশে আশ্রয়গ্রহণকারী বাস্তুচ্যুত রাখাইন রাজ্যের অধিবাসীদের প্রত্যাবাসনের বিষয়টি বিবেচনা করা হবে," উনি আরও বলেন।

 

রোহিঙ্গা প্রসঙ্গ নিয়ে দুই দেশের মধ্যে সম্পর্ক গত কিছু কিছু মাসে তিক্ত হয়েছে।

 

বাংলাদেশ আগেও বহুবার মিয়ানমার সরকারকে এই মানুষদের ফিরিয়ে নিতে বলেও তার ফল হয়নি।

 




Video of the day
More Bangladesh News
Recent Photos and Videos

Web Statistics