Bangladesh
ফেনী আওয়ামী লীগ নেতা হত্যা মামলায় ৩৯ জনের ফাঁসি

13 Mar 2018

#

ঢাকা, মার্চ ১৩: ফেনী জেলার ফুলগাজী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা একরামুল হক একরাম হত্যা মামলার রায়ে ৩৯ জনকে ফাঁসির আদেশ দিয়েছেন আদালত।

মঙ্গলবার (১৩ মার্চ) বিকাল সোয়া ৩টার দিকে জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মোহাম্মদ আমিনুল হক এই রায় দেন। জেলা আদালতের সরকারি কৌঁসুলি (পিপি) হাফেজ আহম্মেদ এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।


ফাঁসির দন্ডাপ্তদের মধ্যে আছেন আওয়ামী লীগ নেতা জাহাঙ্গীর আদেল ও ফুলগাজী উপজেলার যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহিদ চৌধুরী। এই মামলার ১ নম্বর আসামি জেলা তাঁতী দলের সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী মিনারসহ ১৬ জনকে বেকসুর খালাস দেওয়া হয়েছে।


রায় ঘোষণার আগে কড়া নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে ৩৬ আসামিকে কারাগার থেকে আদালতে নেওয়া হয়। এই মামলার চার্জশিটভুক্ত ৫৬ জনের মধ্যে ২০ আসামি পলাতক রয়েছে।

 

তাদের মধ্যে ১১ জন প্রথম থেকেই পলাতক। বাকি ৯ জন আদালত থেকে জামিন নেওয়ার পর পলাতক আছেন। এছাড়া র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হয়েছে আসামি সোহেল ওরফে রুটি সোহেল।


২০১৪ সালের ২০ মে ফেনী শহরের একাডেমি এলাকায় প্রকাশ্য দিবালোকে ফুলগাজী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান একরামুল হককে কুপিয়ে, গুলি চালিয়ে গাড়িসহ পুড়িয়ে হত্যা করে আসামিরা।


এ ঘটনায় একরামুল হকের ভাই রেজাউল হক জসিম বাদী হয়ে বিএনপি নেতা মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী ওরফে মিনারসহ অজ্ঞাত ৩০-৩৫ জনকে আসামি করে ফেনী সদর মডেল থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।


তদন্ত শেষে ২০১৪ সালের ২৮ আগস্ট ৫৬ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেয় পুলিশ। হত্যার প্রায় দুই বছর পর ২০১৬ সালের ১৫ মার্চ ৫৬ জনের বিরুদ্ধে বিচার শুরু করেন আদালত।
গত ২৮ জানুয়ারি এই মামলার যুক্তিতর্ক শুরু হয়।


০১৪ সালে ২০ মে ফেনী শহরের একাডেমি সড়কের বিলাসী হলের সামনে প্রকাশ্য দিবালোকে কুপিয়ে ও গুলি করে হত্যা করা হয় ফুলগাজী উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি একরামুল হক একরামকে (৪৫)। হত্যার পর গাড়িতে আগুন দিয়ে তার মৃতদেহসহ পুড়িয়ে ফেলা হয়।


হত্যাকারীরা প্রকাশ্যে ঘটনাস্থলে গাড়িতে ব্যারিকেড দিয়ে প্রথমে তাকে গুলি করে। পরে দুর্বৃত্তরা তাকে ধারালো দেশীয় অস্ত্র দিয়ে কোপায়।

 

মৃত্যু নিশ্চিত করার পরও তারা ক্ষান্ত হয়নি। একরামকে গাড়িতে রেখে আগুন ধরিয়ে দেয়।

 

আইনশৃঙ্খলা বাহিনী গাড়ি থেকে একরামের পুড়ে অঙ্গার হয়ে যাওয়া দেহাবশেষ বের করে আনেন। ওই দিন দূরে দাঁড়িয়ে সাধারণ মানুষ এ ঘটনা দেখলেও প্রাণভয়ে কেউ এগিয়ে আসেননি।




Video of the day
More Bangladesh News
Recent Photos and Videos

Web Statistics