Column
জামাত ও বাংলাদেশ

10 Sep 2013

#

একটি রাজনৈতিক দল হিসেবে জামাত-এ-ইসলামির রেজিস্ট্রেশন দেশের ধর্মনিরপেক্ষ সংবিধানের সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ন নয় বলে গত পয়লা অগাস্ট রায় দিয়েছে বাংলাদেশের হাই কোর্ট। আদালতের এই রায়ের অর্থ হল, এই দলটি, যারা গণতন্ত্রকে একটি ইসলাম বিরোধী পদ্ধতি বলে মনে করে এবং অ-মুসলমানদের মুসলমানগরিষ্ঠ দেশে সমমর্যাদাসম্পন্ন নাগরিক হিসেবে মেনে নিতে রাজি নয়, তারা নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেনা। রায়ের বিরোধিতা করে জামাত এখন সুপ্রিম কোর্টে গেছে।

 হাইকোর্টের এই আদেশ এমন একটি সময়  হল, যখন একটি ট্রাইব্যুনালে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে অভিযুক্ত ১২ জন জামাত নেতার বিচার চলছে। এই জামাতের অধীনে ১৯৭১ সালে পাকিস্তানি সামরিক বাহিনীর সহযোগী শক্তি--রাজাকার, আল বদর, আল শামস এবং শান্তি কমিটি তাদের কার্যকলাপ চালিয়েছিল।

 
পাকিস্তানি বাহিনীর সহযোগী হিসেবে বাঙ্গালি মুক্তিযোদ্ধাদের হত্যা, ধর্ষণ এবং অপহরণের দায়ে ট্রাইব্যুনাল এ পর্যন্ত ছ\'জন জামাত নেতাকে দোষী সাব্যস্ত করেছে। এইসব দন্ডপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের মধ্যে আছেন গোলাম আজম, যিনি সেই সময় জামাতের প্রধান হিসেবে বাঙ্গালি হত্যার নীল নকশা তৈরি করেছিলেন।বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর তিনি পাকিস্তানে পালিয়ে গিয়েছিলেন। গোলাম আজমের বয়সের কথা বিবেচনা করে ট্রাইব্যুনাল তাঁর মৃত্যুদন্ড না দিয়ে ৯০ বছরের কারাবাসের আদেশ ঘোষণা করেছে।
 
এই জামাতই এখন আবার স্বাধীন বাংলাদেশের রাজনৈতিক অঙ্গনে খালেদা জিয়ার বি এন পি-র হাত ধরে ফিরে এসেছে। শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন ধর্মনিরপেক্ষ আওয়ামী লীগের সঙ্গে লড়তে যেমন বি এন পি-র দরকার ছিল জামাতের পেশীশক্তির সহায়তা, তেমনি নিজেদের তৈরি করা ইসলামি \'ব্র্যান্ড\'-য়ের প্রসার ঘটাতে জামাতের দরকার ছিল বি এন পি-কে।
 
জামাতকে ্বুঝতে গেলে তার ইতিহাসের দিকে তাকাতে হবে। মওলানা আবু আলা মওদুদির হাত ধরে ১৯৪১ সালে এই সংগঠনটির প্রতিষ্ঠা হয়, যার  এক বছর আগেই মুসলিম লীগের\' লাহোর প্রস্তাবে\'দলের প্রধান মহম্মদ জিন্নার দ্বিজাতি তত্ত্ব তুলে ধরা হয়। এরই দ্বিজাতি তত্ত্বই ছিল ভারত ভাগের ভিত্তি। মওলানা মওদুদি কিন্তু লীগের ভারত বিভাজনের দাবির বিরুদ্ধে ছিলেন। কোনও কোনও রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞ মনে করেন, জামা্তকে সৃষ্টি করা হয়েছিল মুসলিম লীগের দাবির বিরোধিতা করার জন্যই।
 
একটি অরাজনৈতিক দল হিসেবে শুরু করা জামাতের কর্মকান্ডের জায়গা ছিল বহুধাবিস্তৃত--আধ্যাত্মিক, সাংস্কৃতিক, অর্থনৈতিক এবং সামাজিক-সব ক্ষেত্রেই। কিন্তু ভারত ভাগের পরেই জামাতের পরিবর্তন ঘটে। সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা মওদুদি পাকিস্তানে চলে যান এবং সংবিধানের পরিবর্তন ঘটিয়ে জামাতকে একটি রাজনৈতিক-ধর্মীয় সংগঠনে পরিণত করেন। নতুন সংবিধান চালু হয় ১৯৫২ সালে এবং পরের বছরেই দল লাহোরে আহমদিয়া-বিরোধী দাঙ্গায় অংশ নেয়ড
 
আহমদিয়া বিরোধী দাঙ্গায় তাঁর ভূমিকার জন্য মওদুদিকে একটি সামরিক আদালত ১৯৫৪ সালে মৃত্যুদন্ডে দন্ডিত করে। সেই সময় দাঙ্গার কারনে লাহোরে সামরিক আইনের শাসন চলছিল। তবে পরে ম ওদুদির সাজা কমিয়ে তাঁকে কারাবাসে পাঠান হয়। এই সময় ফিল্ডমার্শালে আইয়ুব খানের সরকার জামাতকে ্বেআইনি ঘোষণা করে।
     
যে ধর্মীয়-রাজনৈতিক আদর্শ নিয়ে জামাত ১৯৫২ সাল থেকে কাজ শুরু করে, তা ছিল এই যে, রাজনৈতিক ক্ষমতা দখল করা না পর্যন্ত আল্লাহর সার্বভৌমত্ব প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব নয়। সেই লক্ষে পৌঁছনর উদ্দেশ্যে গণতন্ত্রকে সবথেকে সু্বিধাজনক রাস্তা বলে মনে করত, যদিও মাঝে মাঝে প্রকাশ্যেই তারা গণতন্ত্রকে অ-ইসলামিয় বলে বর্ননা করত।
 
আহমদিয়া বিরোধী দাঙ্গার বিচার চলার সময় জামাত নেতারা পরিষ্কারভাবে মুহম্মদ মুনির কমিশনকে জানি্যেছিলেন যে, যদি তাঁদের দলের আদর্শের উপর ভিত্তি করে পাকিস্তানের সৃষ্টি হত, তাহলে সেখানে অমুসলমানদের কখনোই মুসলমানদের সমান অধিকার দেওয়া হতনা।
 
পাকিস্তান অথবা বাংলাদেশের কিছু মানুষ জামাতকে সমর্থন করতে পারেন, কিন্তু তাঁরা কখনোই এই দলকে ভোট দিয়ে তাঁদের ভোট নষ্ট করেননা। উনিশশো সত্তর সালের নির্বাচনে পাকিস্তানের ৩০০ টি আসনের মধ্যে জামাত পেয়েছিল মাত্র চারটি।পাকিস্তানে এই দলটি অবশ্য একবার কেন্দ্রীয় সরকারে ক্ষমতা ভাগাভাগি করে ছিল, কিন্তু তা সামরিক বাহিনীর আশীর্বাদের ফলে।এর আগে, ১৯৭৮ সালে জামাত জিয়াউল হকের সামরিক সরকারে ছিল। পরে, ২০০২ সালেও সামরিক বাহিনীর বদান্যতায় এম এম এ-র সদস্য হিসেবে জামাত ন্যাশনাল অ্যাসেমব্লিতে কিছু আসন পেয়েছিল।
 
উনিশশো তিরানব্বই সালে জামাত সবকটি আসনের জন্য লড়লেও জেতে মাত্র তিনটিতে। হতাশায় দলের আমির কাজি হুসেন গণতন্ত্রকে ইসলামের পরিপন্থী বলে মন্তব্য করেন।
 
বাংলাদেশে জামাত মাত্র ১৭টি আসন নিয়ে খালেদা জিয়া সরকারকে সমর্থন দিয়ে যাচ্ছে। তবে সেই সমর্থনেই বেগম জিয়া খুশি, কারণ তাঁর দরকার জামাতের পেশী শক্তির।
 
সুতরাং, জামাতের উপর নিষেধাজ্ঞা দেশের সামাজিক-রাজনৈতিক ক্ষেত্রকে পরিচ্ছন্ন করে তোলার পথ সুগম করবে।



Video of the day
More Column News
Recent Photos and Videos

Web Statistics