Column
ভুল রাজনীতি কেড়ে নেয় অনেক কিছুই

06 Mar 2014

#

সব আলোচনা, বিতর্ক, টক শো শেষ হল ৫ই জানুয়ারির সাধারণ নির্বাচনের সঙ্গে সঙ্গে এবং সংবিধান অনুযায়ী ক্ষমতায় এল আওয়ামি লিগ সরকার।

 নতুন সরকার আসার পর থেকেই বিএনপি-জামাত জোটের নাশকতামূলক কাজকর্ম অনেক কমে গেছে এবং সংখ্যালঘুদের উপর আক্রমণও সরকার আটকাতে পেরেছে, যার ফলে  স্বস্তির নিশ্বাস ফেলেছেন দেশের মানুষ। এক সময় যাঁরা নির্বাচন করার বিরুদ্ধে ছিলেন, এখন তাঁরা সরকারের প্রশংসা করছেন আর সরকারের নেওয়া পদক্ষেপগুলিকে স্বতস্ফূর্ত ভাবে সমর্থন করছেন, যদিও বিএনপি-জামাতের ভারতবিরোধী প্রচার চলছেই। যে চিত্র দেখা যাচ্ছে এখন, তাতে যিনি সরকারের বিরুদ্ধে কথা বলবেন, তিনি বিএনপি-জামাতের বন্ধু। অনেকে মনে করেছিলেন তথাকথিত একপেশে নির্বাচনে জিতে আসা বর্তমান সরকার অল্প দিনের জন্যেই থাকবে। কিন্তু তা সত্যি হয়নি। আওয়ামি লিগ-নেতৃত্বাধীন সরকারের অধীনে করা  উপজিলা নির্বাচনে অংশ নিয়ে এমন কি বিএনপিও এখন বর্তমান সরকারকে বৈধ বলে মেনে নিচ্ছে। খুব বেশি দেরি না করে বিএনপি নেত্রী বেগম জিয়াকে এ ব্যাপারে সঠিক উপদেশ দেওয়ার জন্য তাঁর উপদেষ্টাদের অভিনন্দন জানাতে হয়।  ভুল এবং বেহিসাবি সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য বিএনপির যে রাজনৈতিক ক্ষতি এর আগে হয়ে গেছে, তা তাড়াতাড়ি পূরণ হবার নয়। তার জন্য দরকার পরিকল্পনা মাফিক প্রচেষ্টা। ভুল সিদ্ধান্তের কথা বলতে হলে ভারতীয় প্রেসিডেন্ট প্রণব মুখোপাধ্যায়ের ভারত সফরের সময় তাঁর সঙ্গে সাক্ষাৎকার বাতিল করার কথা যদি বলা যায়, তবে তা অপ্রাসঙ্গিক হবেনা। এই সিদ্ধান্ত ছিল শিষ্টাচার বিরোধী এবং পারস্পরিক সম্পর্কের উন্নতি ঘটানোর পরিপন্থী।  ভারতীয় প্রেসিডেন্টকে বাংলাদেশ সফরের জন্য যাঁরা আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন তাঁদের মধ্যে বেগম জিয়াও ছিলেন। কিন্তু যখন শ্রী মুখোপাধ্যায়  এলেন, তখন বেগম জিয়া রাষ্ট্রীয় অতিথির সাথে দেখা না করে শুধুমাত্র একটি মেল পাঠিয়ে তাঁর দলেরই মিত্র জামাতের ডাকা হরতালের জন্য যে যাওয়া যাচ্ছেনা, সেই কারণ জানান। বেগম জিয়াকে উপদেশ দেওয়া হয় যে, হরতাল চলাকালীন যদি বাইরে যান তাহলে এমন কি সরকার থেকেও বলা হবে তিনি হরতালের বিরধিতা করেছেন। তাঁকে আরও বলা হয়েছিল যে, কিছু রাজনৈতিক দলের থেকে তাঁর জীবনের উপর আক্রমণের সম্ভাবনা আছে। হায় উপদেষ্টাগণ এবং বেগম জিয়া! বাংলাদেশ তো সব সময়েই অতিথিপরায়ণ। এই সিদ্ধান্ত কি ঠিক ছিল ? এই সিদ্ধান্ত নিয়ে ভারতীয় প্রেসিডেন্ট প্রণব মুখোপাধ্যায়কেই শুধু অপমান করা হলনা, গোটা ভারত রাষ্ট্রকেই করা হল। বেগম জিয়া,  আপনার জামাত-প্রেমের জন্য আপনি নিজেই নিজেকে সহায়হীন এবং মূলস্রোত থেকে বিচ্ছিন্ন করে ফেলেছেন। তবে এখনও সময় আছে। জামাত-এ-ইসলামি এবং হেফাজত-এ-ইসলামের উপর নির্ভর করে থাকবেননা। চেষ্টা করুন তাদের বন্ধন থেকে বেরিয়ে আসতে, নাশকতামূলক কাজ থেকে দূরে রাখুন নিজেদের, ফিরে আসুন রাজনীতির মূলস্রোতে। তাহলেই আপনাদের নষ্ট হয়ে যাওয়া ভাবমূর্তি পুনরুদ্ধার করা যেতে পারে। শেষ কথা এই, দূরদৃষ্টি এবং দায়িত্ব নিয়ে কাজ করা এবং বিভিন্ন দল ও পেশাদার মানুষের সমন্বয়ে গঠিত এই সরকার দেশকে রাজনৈতিক স্থিতি এনে দেবে এবং বিরোধী দলগুলিকে বাধ্য করবে গঠনমূলক হতে। 




Video of the day
Recent Photos and Videos

Web Statistics