Bangladesh

দ্রুত বর্ধনশীল বাংলাদেশ চীনের অনুগত ভৃত্য হতে রাজি নয় বাংলাদেশ-চীন
ওয়ালপেপার কেভ প্রতীকী ছবি

দ্রুত বর্ধনশীল বাংলাদেশ চীনের অনুগত ভৃত্য হতে রাজি নয়

Bangladesh Live News | @banglalivenews | 09 Aug 2022, 08:03 pm

ঢাকা, ৯ আগস্ট ২০২২: ঢাকাকে পরবর্তী ইসলামাবাদ বা কলম্বোতে পরিণত করার এবং ভারত মহাসাগরে তার কৌশলগত অবস্থান এবং প্রাকৃতিক সম্পদের সুবিধাগুলিকে কাজে লাগানোর চীনের আকাঙ্ক্ষার বিরুদ্ধে বাংলাদেশ ক্রমাগত রূদ্ধকরন চালিয়ে যাচ্ছে।

বাংলাদেশ চীনের বেল্ট অ্যান্ড রোড ইনিশিয়েটিভের অংশ এবং বাণিজ্য ও বিনিয়োগ বৃদ্ধি উপভোগ করে। তা সত্ত্বেও, বাংলাদেশ চীনের অনুগত ভৃত্য হতে অস্বীকার করে, বরং পররাষ্ট্রনীতির বিষয়ে তার স্বাধীনতা বজায় রাখে।

সম্প্রতি এ বিষয়ে একটি আভাস দেখা যায় যখন চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই অগাস্টের প্রথম সপ্তাহে ঢাকা সফরের ইচ্ছা প্রকাশ করলে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন তা কড়াভাবে প্রত্যাখ্যান করেন।

বাংলাদেশের ডেইলি স্টার-এর খবর অনুযায়ী, বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী স্পষ্টভাবে তার চীনা প্রতিমন্ত্রীকে আগস্টের প্রথম সপ্তাহে তার ঢাকা সফর পুনঃনির্ধারণ করতে বলেছেন, যেহেতু তিনি সরকারী ব্যস্ততার জন্য নিউইয়র্ক এবং কম্বোডিয়ায় থাকবেন।

এ কে আবদুল মোমেন কূটনৈতিক মাধ্যমে চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে জানান, আগস্টের দ্বিতীয় সপ্তাহে তিনি যেন বাংলাদেশে আসেন।

মঙ্গোলিয়া ও কম্বোডিয়াসহ আঞ্চলিক সফরের অংশ হিসেবে ওয়াং ই বাংলাদেশ সফর করবেন। গত পাঁচ বছরে চীন থেকে বাংলাদেশে এটিই হবে প্রথম উচ্চপর্যায়ের সফর।

এর আগে ২০২১ সালের মে মাসে, চীন, চতুর্ভুজ গ্রুপে যোগদান থেকে বিরত থাকার জন্য একটি পাবলিক প্ল্যাটফর্ম থেকে ঢাকাকে সতর্ক করার পরে, বিক্ষুব্ধ বাংলাদেশ সরকার ঢাকায় চীনের রাষ্ট্রদূত লি জিমিংকে একটি গভীর ভাবপূর্ন বক্তৃতা দিয়েছিল এবং তাকে "শালীনতা এবং ভব্যতা" বজায় রাখতে বলেছিল।

২০২১ সালের ১২ মে, কূটনৈতিক সংবাদদাতা সমিতি আয়োজিত এক বৈঠকে ঢাকায় চীনের রাষ্ট্রদূত লি জিমিং বাংলাদেশকে সতর্ক করে বলেন, “অবশ্যই চারজনের এই ছোট ক্লাবে অংশগ্রহণ করা বাংলাদেশের পক্ষে ভালো ধারণা হবে না কারণ এটি আমাদের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের যথেষ্ট ক্ষতি করবে।”

প্রত্যাশিতভাবেই, বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তরফ থেকে এর বিরুদ্ধে কঠোর-শব্দে বিবৃতি দেওয়া হয়েছিল।

"একটি সার্বভৌম দেশ হিসাবে, বাংলাদেশ তার জনগণের স্বার্থে তার পররাষ্ট্রনীতির গতিপথ নির্ধারণ করবে,” বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন তীব্র প্রতিক্রিয়ায় বলেছিলেন।

এই বিবৃতিটি পড়ে, স্পষ্টতই একটি ইঙ্গিত পাওয়া যায় যে বাংলাদেশ, চীনের অর্থনৈতিক ও অন্যান্য প্রলোভনের সামনে তার জাতীয় স্বার্থের সাথে আপস করবে না।

২০১১ থেকে ২০২১ সালের মধ্যে, চীন বাংলাদেশে অবকাঠামোতে ১০ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করেছে এবং যদি মিডিয়া রিপোর্টগুলি বিশ্বাস করা হয়, বেইজিং ২০১৬ সালের অক্টোবরে রাষ্ট্রপতি শি জিনপিংয়ের ঢাকা সফরের সময় স্বাক্ষরিত বেশ কয়েকটি চুক্তির প্রতিশ্রুতি এখনও পূরণ করতে পারেনি।

বেশ কিছু সময়সীমা মিস করার পর, বাংলাদেশের চট্টগ্রাম জেলায় কর্ণফুলী মাল্টিপল রোড টানেল প্রকল্পের কাজ, ২০১৭ সালে চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং কার্যত উদ্বোধন করেছিলেন। ২০২০ সালে শুরু হয়েছিল।

ডেইলি স্টার তার সাম্প্রতিক প্রতিবেদনে বলেছে, চায়না কমিউনিকেশন অ্যান্ড কনস্ট্রাকশন কোম্পানি লিমিটেড দ্বারা নির্মাণাধীন ৯.৩ কিলোমিটার দীর্ঘ টানেল প্রকল্পটি ২০২৩ সালের আগে শেষ হবে না।

২০১৭ সালের পর প্রথমবারের মতো ঢাকা সফরের সময় চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই পিরোজপুরের কোচা নদীর উপর বাংলাদেশ-চীন মৈত্রী সেতু বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষের কাছে হস্তান্তর করবেন বলে আশা করা হচ্ছে। ২.৯৬ কিলোমিটার দীর্ঘ সেতুটি চীনের অর্থায়নে নির্মিত হয়েছে।

চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও সাংস্কৃতিক সহযোগিতা সংক্রান্ত কিছু সমঝোতা স্মারকও স্বাক্ষর করবেন বলে আশা করা হচ্ছে। তারপরও চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর প্রত্যাশিত সফর নিয়ে ঢাকার কূটনৈতিক মহলে কোনো উৎসাহ-উদ্দীপনা দেখা যাচ্ছে না।

মনে করা হচ্ছে চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এশীয় বিষয়ক বিভাগের মহাপরিচালক লিউ জিনসং-এর অপমানজনক মন্তব্য - বাংলাদেশের উচিত "ঠান্ডা যুদ্ধের মানসিকতা এবং ব্লক রাজনীতি প্রত্যাখ্যান করা" -এর কারণে বাংলাদেশ এখনো ক্ষুব্ধ।

গত ৩ জুন চীনে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মাহবুবুজ্জামানের সাথে এক বৈঠকে, লিউ জিনসং বলেছিলেন, “চীন বিশ্বাস করে যে বাংলাদেশ সহ এই অঞ্চলের দেশগুলি তাদের নিজস্ব দেশ ও অঞ্চলের মৌলিক স্বার্থের কথা মাথায় রাখবে, স্বাধীনতাকে সমুন্নত রাখবে। ঠান্ডা যুদ্ধের মানসিকতা এবং ব্লক রাজনীতি প্রত্যাখ্যান করুন।"

বাংলাদেশ এ বিষয়ে কোনো প্রতিক্রিয়া না জানালেও চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ওই কর্মকর্তার বক্তব্য ভালোভাবে নেয়নি।

অর্থনৈতিক ক্ষেত্রেও দুই দেশ একই পৃষ্ঠায় নেই। অর্থনৈতিকভাবে আরেকটি শ্রীলঙ্কা বা পাকিস্তান হওয়া এড়াতে বাংলাদেশ ক্রমবর্ধমান আমদানি ব্যয় পরিচালনার তহবিলের জন্য আইএমএফের সাথে আলোচনা করছে।

ব্লুমবার্গের হিসাবে, গত ১২ মাসে, বাংলাদেশের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ১৩ শতাংশ হ্রাস পেয়ে $৩৯.৬৭ বিলিয়ন হয়েছে, যা এখনও প্রায় চার মাসের আমদানি মূল্যের জন্য যথেষ্ট।

তুলনায়, ২২ জুলাই পর্যন্ত, পাকিস্তানের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ছিল $৮.৫৭ বিলিয়ন, যা দুই মাসেরও কম আমদানি মূল্যের জন্য যথেষ্ট, যেখানে শ্রীলঙ্কার $১.৮৬ বিলিয়ন বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভের মধ্যে জুনের শেষ পর্যন্ত শর্তসাপেক্ষে চীন থেকে $১.৫ বিলিয়ন বিনিময়ের অন্তর্ভুক্ত ছিল।

সেই কারণেই, আত্মবিশ্বাসী বাংলাদেশের অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, তার দেশ, ৪১৬ বিলিয়ন ডলারের অর্থনীতি, কোনো সংকটে নেই এবং ঢাকা যদি আইএমএফের কাছে তহবিল চায়, তবে তা ভবিষ্যতের প্রয়োজনে করা হয়েছে।

তার মানে বাংলাদেশ কার্যকরভাবে শ্রীলঙ্কা বা পাকিস্তানের মতো ঋণের ফাঁদে পড়া এড়িয়ে যাচ্ছে।

এর মাধ্যমে এটা স্পষ্ট যে ভবিষ্যতের প্রয়োজনে আইএমএফ, বিশ্বব্যাংক এবং এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাঙ্কের মতো বহুপাক্ষিক সংস্থাগুলি ছাড়া আর্থিক সাহায্যের জন্য চীন বা অন্য কোনও দেশের দিকে ঝুঁকে পড়ার সুযোগ প্রায় নেই।

চীন তার ঋণের উপর বিশ্বের সর্বোচ্চ সুদ আদায়কারী হিসাবে বিবেচিত হয়, যেখানে এই বহুপাক্ষিক আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলি চীনের তুলনায় ন্যূনতম সুদের হারে তহবিল সরবরাহ করে।

যাই হোক, এটি বাংলাদেশকে তার অর্থনৈতিক উৎপাদনশীলতা বাড়াতে চীনের সাহায্য চাওয়া থেকে বিরত রাখে না।

ঢাকা ২০৪০ সালের মধ্যে একটি উন্নত রাষ্ট্রে পরিণত হওয়ার লক্ষ্য রাখে এবং সেই লক্ষ্য অর্জনের জন্য বাংলাদেশের রাস্তা, সেতু, বন্দর, বিদ্যুৎ কেন্দ্র এবং অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ অবকাঠামো প্রকল্পের উন্নয়নে চীনা অর্থের প্রয়োজন।

এত কিছুর পরও বাংলাদেশ বহুবার দেখিয়েছে যে তারা চীনের হুকুমের অধীন হবে না। সোনাদিয়া গভীর সমুদ্র বন্দর নির্মাণে ২০১৪ সালে চীনের শর্ত মানতে রাজি হয়নি বাংলাদেশ।

এর পরিবর্তে ঢাকা, সোনাদিয়া থেকে ২৫ কিলোমিটার দূরে মাতারবাড়িতে গভীর সমুদ্র বন্দর নির্মাণের জন্য জাপানকে একটি চুক্তি দিয়েছে।

জাপান ২০২৬ সালের মধ্যে মাতারবাড়ি বন্দর প্রকল্পটি সম্পূর্ণ করবে বলে আশা করা হচ্ছে, চীনকে অস্বস্তি দেবে কারণ তারা সোনাদিয়া বন্দরটিকে তার ইউনান প্রদেশে জ্বালানি সরবরাহের অংশ হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে ছিল।

প্রকৃতপক্ষে, সোনাদিয়াকে বেইজিং একটি বিকল্প পথ হিসেবে দেখেছিল যাতে জ্বালানি ও গ্যাস সরবরাহের জন্য মালাক্কা প্রণালীর উপর নির্ভরতা কমানো যায়।

সর্বশেষ শিরোনাম

খুঁটির জোর থাকলে বিএনপি বিদেশিদের কাছে ধরনা দিতো না: সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী Fri, Oct 07 2022

টাঙ্গাইলে মাইক্রোবাসে বাসের ধাক্কা, নিহত ৬ Thu, Oct 06 2022

বিএনপির রাজনীতি বিদ্যুৎবিহীন খাম্বার মতো: কাদের Thu, Oct 06 2022

‘জঙ্গি সম্পৃক্ততায়’ সাতজন গ্রেপ্তার Thu, Oct 06 2022

সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বাঙালির চিরকালীন ঐতিহ্য : রাষ্ট্রপতি Thu, Oct 06 2022

সর্বোচ্চ নিরাপত্তার আইসিডি হচ্ছে বিএম ডিপো Thu, Oct 06 2022

কক্সবাজার সৈকতে লাখো মানুষের অংশগ্রহণে প্রতিমা বিসর্জন Thu, Oct 06 2022

প্রতিমা বিসর্জনের মধ্য দিয়ে দুর্গোৎসবের সমাপ্তি Thu, Oct 06 2022

মিয়ানমারের সাহস নেই আমাদের সরাসরি কিছু করার: পরিকল্পনামন্ত্রী Thu, Oct 06 2022

সিঁদুররাঙা হাসিমুখে নেচে গেয়ে দেবীকে বিদায় Thu, Oct 06 2022