Column
মানবাধিকারঃ নিজের দিকে তাকাতে চাইছেনা পাকিস্তান

Bangladesh Live News | @banglalivenews | 16 Dec 2019

মানবাধিকারঃ নিজের দিকে তাকাতে চাইছেনা পাকিস্তান
পাকিস্তানের ফেডারেল মিনিস্টার ফর হিউম্যান রাইটস ডঃ শিরীন মাজারি এমন একজন মহিলা, যিনি নিজের দেশে মানবাধিকারের পরিস্থিতি নিয়ে "চোখেমুখে মিথ্যা কথা" বলেন, কিন্তু তাঁর 'মিনিস্টারিয়াল ব্রিফ' অতিক্রম করে অন্য দেশে অধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ নিয়ে কথা বলেন।

তিনি যে বেপরোয়া মিথ্যা কথা বলেন, এই অভিযোগ করেছেন কলাম লেখক ইয়াসির লতিফ হামদানি, যিনি ডেইলি টাইমস কাগজে লিখেছেন,

 

"আল-জাজিরাতে মেহেদী হাসানের অনুষ্ঠানে মাজারীর উপস্থিতি সেই মুহূর্তগুলির মধ্যে একটি ছিল যখন এই লেখক একজন পাকিস্তানী হিসাবে পুরোপুরি বিব্রত হয়েছিল।"

 

"তিনি যে শুধু ডাহা মিথ্যা বলে ধরা পড়েছেন, তা-ই নয়, তাঁকে দেখে মনে হয়েছে যে সংবিধান থেকে তিনি নিজের স্বপক্ষে উদ্ধৃতি দিচ্ছিলেন, তা সম্পর্কে তিনি পুরোপুরি অজ্ঞ।"

 

"প্রথমত, কয়েকটি বিষয়ে আমাদের পরিষ্কার হওয়া দরকার। পাকিস্তানের সংবিধানের দ্বিতীয় এবং তৃতীয় সংশোধন  আহমেদিয়া এবং অন্যান্য সম্প্রদায়ের প্রতি জিন্নার পুনরুচ্চিত প্রতিশ্রুতির বিরোধী এবং তার মর্মকে কলুষিত করেছে। শুধু ২৩ মে, ১৯৪৪ সালেই নয়, জিন্না বারংবার এই দাবি অস্বীকার করেছেন যে, আহমেদিয়াদের মুসলমান সমাজ থেকে বের করে দেওয়া উচিত," হামদানি লিখেছেন।

 

আহমেদিয়া ছাড়াও পাশতুন উপজাতি, বালোচ এবং গিলগিট-বালতিস্তানের মানুষদের প্রতি মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ রয়েছে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে। এ সব ব্যাপারে মানবাধিকার সংগঠনগুলির কাছে বিস্তারিত তথ্য আছে।

 

বিদেশ মন্ত্রকের ব্রিফের বাইরে গিয়ে কাশ্মীর নিয়ে কথা বলার জন্যেও হামদানি মাজারিকে আক্রমণ করেছেন।

 

মাজারি অবশ্য এই সমালোচনা সত্ত্বেও অকুতোভয় এবং অবিচলিত। এর পরেও তিনি তাঁর নিজের সরকারের বিদেশ দফতরের সমালোচনা শুরু করেছেন।

 

মানবাধিকার দিবস নিয়ে বলতে গিয়ে তিনি বিদেশ দপ্তরকে "অযোগ্য এবং সেকেলে" বলে জানিয়েছেন। কারণ, এই দপ্তর মানবাধিকার লঙ্ঘনের ব্যাপারে তাঁর নিজের প্রচারকে সাহায্য করতে পারেনি।

 

পাকিস্তান স্বাক্ষরকারী এমন সাতটি বিশ্ব মানবাধিকার সংস্থার উল্লেখ করে ইসলামাবাদে গত ১০ ই ডিসেম্বর মাজারি  বলেছেন "
“ইউরোপীয় ইউনিয়নের সাথে অগ্রাধিকারমূলক বাণিজ্য চুক্তির মতো এই সম্মেলনের অধীনে দায়িত্ব পালনের প্রতিশ্রুতি দিয়ে পাকিস্তান উপকৃত হয়েছে, কিন্তু তবুও আন্তঃরাষ্ট্রীয় সম্পর্কের ক্ষেত্রে মানবাধিকার কূটনীতির কেন্দ্রিকতাকে বিদেশ দফতর স্বীকার করেনি।"

 

ক্ষুব্ধ মাজারির কথা অনুসারে, "বিদেশ দফতর মানবাধিকারকে তার প্রাপ্য গুরুত্ব দিচ্ছেনা" এবং সে তার  "সুযোগ হারিয়েছে।"

 

হামদানি লিখেছেনঃ " শিরীন মাজারিকে কেউ এমন কোনও স্মারকলিপি দেয়নি যে তিনি পাকিস্তানের বিদেশমন্ত্রীও নন, প্রতিরক্ষামন্ত্রীও নন। তিনি মানবাধিকার মন্ত্রীর পদাধিকারী।"

 

"মানবাধিকার মন্ত্রকের  বিষয়টি পাকিস্তানের অসহায় নাগরিকের মানবাধিকার সম্পর্কিত এবং এর সঙ্গে  অন্য কোথাও যা ঘটছে তার কোনও সম্পর্ক নেই।বস্তুতপক্ষে, এমন কি  আজাদ জম্মু এবং কাশ্মীরের বিষয়টিও তাঁর এক্তিয়ারভুক্ত নয়। তার জন্য আলাদা মন্ত্রক আছে।"

 

দৈনিক ডন জানাচ্ছে, মাজারি বিদেশী নীতির পরিকাঠামোকে  আধুনিক-দিনের প্রয়োজনীয়তার সাথে সম্পর্কযুক্ত করার জন্য সুপারিশ করেছিলেন।তিনি  মানবাধিকার কূটনীতির উপর বিষয়ভিত্তিক জোর দেওয়ার আহ্বান জানান। তিনি বলেন, এটি কয়েকটি দেশ কর্তৃক মানবাধিকার অধিকারের প্রয়োগমূলক প্রয়োগের বিষয়েও আলোচনা করবে।

 

যে পশ্চিমি দেশগুলি মানবাধিকারের নৈতিকতা বহনকারী বলে নিজেদের দাবি করে, তাদের তিনি  "ভারতীয় সেনার অধিকৃত কাশ্মীরের বাড়াবাড়ি উপেক্ষা করার জন্য" আক্রমণ করেছেন। .

 

পাকিস্তানের প্রাক্তন পররাষ্ট্রসচিব আইজাজ চৌধুরী, যিনি বর্তমানে ইসলামিক স্ত্র্যাটেজিক স্টাডিজ, ইসলামাবাদের মহাপরিচালক ছিলেন, তিনি মন্তব্য করেছিলেন যে পশ্চিমি দেশগুলি ধর্মনিন্দা, সংখ্যালঘু অধিকার, শিশুশ্রম, মৃত্যুদণ্ড,  ইত্যাদি বিষয়ের উল্লেখ করে পাকিস্তানের মানবাধিকার রেকর্ড নিয়ে  প্রশ্ন তোলায় পাকিস্তান "মানবাধিকারের নামে আন্তর্জাতিকভাবে দুর্নামের ভাগীদার হয়েছে।"

 

মানবাধিকার লঙ্ঘন নিয়ে পাকিস্তানের দ্বিচারিতার   আরেকটি উদাহরণ হ'ল চীনের জিনজিয়াং প্রদেশে উইঘুর মুসলিমদের  দমন করার বিষয়ে তার  গভীর নীরবতা। এমনকি পাকিস্তান যেখানে নিজেকে মুসলিম উম্মাহর শীর্ষ নেতা হিসেবে বিবেচনা করে, সেখানে  সহ-মুসলিমদের প্রতি তার  সহানুভূতিও অনুপস্থিত।




Video of the day
More Column News
Recent Photos and Videos

Web Statistics