Muktijudho
মুক্তিযুদ্ধকালে রণদা প্রসাদ সাহা হত্যা : এক জনের মৃত্যুদন্ড

Bangladesh Live News | @banglalivenews | 28 Jun 2019

Saha murder: 1 gets death sentence
নিজস্ব প্রতিনিধি, ঢাকা, জুন ২৮ : মুক্তিযদ্ধের সময় দানবীর রণদা প্রসাদ সাহা (আর পি সাহা) ও তার ছেলে ভবনী প্রসাদ সাহা হত্যাকান্ডসহ তিনটি গণহত্যার অভিযোগে টাঙ্গাইলের মির্জাপুরের মাহবুবুর রহমানকে মৃত্যুদন্ডের রায় দিয়েছে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল।

ট্রাইব্যুনালের চেয়ারম্যান বিচারপতি মো. শাহিনুর ইসলামের নেতৃত্বে তিন সদস্যের বিচারিক প্যানেল বৃহস্পতিবার এ রায় দেয়। এটি মুক্তিযদ্ধের সময় সংগঠিত মানবতাবিরোধী অপরাধ বিচারে গঠিত ট্রাইব্যুনালের ৩৮তম রায়।


প্রসিকিউটর রানা দাশগুপ্ত তার প্রতিক্রিয়ায় বলেন, আনীত অভিযোগ প্রমাণে সক্ষম হয়েছে প্রসিকিউশন। রায়ে সন্তোষ প্রকাশ করে তিনি বলেন, এ রায় একটি মাইলফলক এবং ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠায় দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে। আসামি মাহবুবুর রহমানের পক্ষে আইনজীবী ছিলেন গাজী এম এইচ তামিম।
উভয়পক্ষের যুক্তিতর্ক শেষে গত ২৪ এপ্রিল মামলায় রায় ঘোষণার জন্য অপেক্ষমান (সিএভি) রেখে আদেশ দিয়েছিল ট্রাইব্যুনাল। পরে রায় ঘোষণার জন্য ২৭ জুন দিন ঠিক করে ট্রাইব্যুনাল।


গত বছরের ১১ ফেব্রুয়ারি ট্রাইব্যুনাল মাহবুবুর রহমানের বিরুদ্ধে অভিযোগ আমলে নেয়। পরে ২৮ মার্চ অভিযোগ গঠন করেন ট্রাইব্যুনাল। ২০১৭ সালের ২ নভেম্বর তদন্ত সংস্থার কার্যালয়ে মামলার প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়।


আসামি মাহবুবুর রহমান ১৯৭১ সালের ৭ মে মধ্যরাতে নারায়ণগঞ্জের স্থানীয় রাজাকারদের সহায়তায় পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর ২০-২৫ জন সদস্যকে নিয়ে রণদা প্রসাদ সাহার বাসায় অভিযান চালায়। এ আসামি এক সময় জামায়াতের সমর্থক ছিলেন। তিনি তিন তিনবার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্ধিতা করে পরাজিত হন। আসামী মাহবুব মুক্তিযুদ্ধের সময় টাঙ্গাইলের মির্জাপুরের ভারতেশ্বরী হোমসের আশপাশের এলাকা, নারায়ণগঞ্জের খানপুরের কুমুদিনী ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট ও তার আশপাশের এবং টাঙ্গাইল সার্কিট হাউজ এলাকায় অপরাধ সংঘটিত করে।


রণদা প্রসাদ সাহা বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা। মানবসেবায় অসামান্য অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ স্বাধীনুার পর সরকার আর পি সাহাকে মরণোত্তর স্বাধীনুা পদক দেয়। মানবহিতৈষী কাজের জন্য ব্রিটিশ সরকার রায় বাহাদুর খেতাব দিয়েছিল রণদা প্রসাদ সাহাকে। রণদা প্রসাদ সাহার বাবার বাড়ি ছিল টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে। সেখানে তিনি একাধিক শিক্ষা ও দাতব্য প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলেন। এক সময় নারায়ণগঞ্জে পাটের ব্যবসায় নামেন রণদা প্রসাদ সাহা, থাকতেন নারায়ণগঞ্জের খানপুরের সিরাজদিখানে। সে বাড়ি থেকেই তাকে, তার ছেলে ও অন্যদের ধরে নিয়ে যায় আসামি মাহবুবুর রহমান ও তার সহযোগীরা।


আসামির আইনজীবী গাজী এম এইচ তামিম বলেন, এই রায়ে তারা সংক্ষুব্ধ, তারা আপিল করবেন। নিয়ম অনুযায়ী, রায়ের এক মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ আদালতে আপিল করার সুযোগ পাবেন আসামি মাহবুবুর রহমান।




Video of the day
More Muktijudho News
Recent Photos and Videos

Web Statistics